নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। এটি জঙ্গীবাদের ধর্ম নয়। কিন্তু একটি কুচক্রি মহল নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য সারা পৃথিবীতে মুসলমানদেরকে সন্ত্রাসী ও জঙ্গী বানানোর চেষ্টায় লিপ্ত। এখন কোন কোন রাষ্ট্রে মুসলমানদের প্রবেশেও বাঁধা দেয়া হয়। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো, আমাদেরকে সন্ত্রাসী কে বানালো? ইরাকতো একটি সুন্দর দেশ ছিলো। সেখানে কোন জঙ্গীবাদ ছিলো না। কিন্তু এরপরেও ইরাককে কেন ধ্বংস করা হলো? সিরিয়া ও স্তাম্বুলেও কোন জঙ্গী ছিলো না। তাহলে সিরিয়াকে কেন ধ্বংস করা হয়েছে? ইরানে এখনো যুদ্ধ চলছে। ইসলামের বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্রকারীদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে।’

২৬ জানুয়ারি শুক্রবার বাদ জুম্মা বন্দরের কুতুববাগ দরবারের ওরশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক রাষ্ট্রপতি পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এসব কথা বলেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, জাতীয় পার্টির এমপি এ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, মহানগর জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক সানাউল্লাহ সানু প্রমুখ।

এদিকে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নারায়ণগঞ্জের বন্দরে আগমন উপলক্ষে শুক্রবার সকালে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার নেতৃত্বে সোনারগাঁ উপজেলা জাতীয় পার্টি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা শতশত মোটরসাইকেল ও গাড়ির বহর নিয়ে পল্লীবন্ধুকে স্বাগত জানান। এসময় নেতাকর্মীদের মুখে মুখে পল্লীবন্ধু ও এমপি খোকার স্লোগান এবং হাতে উভয়ের ছবি সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন ছিলো।