নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চিকিৎসকদের অবহেলায় সাবিহা তাসমিয়া ঝুমা (২৫) নামের এক প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় নগরীর নবাব সলিমুল্লাহ সড়কের ডন চেম্বারে মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতাল নামের ক্লিনিকে ভাঙচুর চালিয়েছে নিহতের স্বজনরা।  খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

এঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. অমল কুমার ঘোষ সহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত সাবিহা তাসমিয়া ঝুমা’র বাড়ি ফতুল্লার উত্তর মাসদাইর এলাকার হাজী লুৎফর রহমান সড়কে।

নিহতের স্বামী কামরুল হাসান শরীফ জানান, ভোরে প্রসব বেদনা উঠার পরে সকাল ৬টায় তার স্ত্রীকে ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। এর কিছুক্ষণ পরেই অপারেশন করা হয় ঝুমাকে। সকাল ৭টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

তার অভিযোগ, চিকিৎসকদের অবহেলায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঝুমার মৃত্যু হয়েছে। নবজাতকের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, অন্ত:স্বত্তা হওয়ার পর থেকেই ডা. অমল কুমার পোদ্দারের তত্বাবধায়নে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন গৃহবধূ সাদিয়া জাহান ঝুমা। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে তাঁর প্রসব ব্যথা ওঠলে স্বজনেরা তাঁকে এদিন ৬টার দিকে মেডিস্টারে ভর্তি করালে ডা. অমল কুমার পোদ্দারের নেতৃত্বে এই গৃবধূর সিজারের মাধ্যমে ৭ টা ১৫ মিনিটে একটি সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। পরে দুপুর একটার দিকে প্রসূতির স্বজনদের ক্লিনিক থেকে জানানো হয় সাদিয়া জাহান ঝুমা মারা গেছেন।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দুইপক্ষকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইজন চিকিৎসক ও দুইজন নার্সকে আটক করা হয়েছে।