নতুন এক ইতিহাসের সৃষ্টি করলেন সাংসদ শামীম ওসমান। নারায়ণগঞ্জে প্রথম বারের ন্যায় বৃহত্তর ঈদ জামাতের আয়োজন করে তিনি এই ইতিহাসের সৃষ্টি করেছেন।

বুধবার(২২ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৮টায় শহরের ইসদাইর এলাকায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের উত্তর পাশে একে এম সামছুজ্জোহা স্টেডিয়াম এবং দক্ষিণ পাশে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ সমন্বয়ে এ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন নগরীর চাষাঢ়া নূর মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুস সালাম।

নামাজের পূর্বে সাংসদ শামীম ওসমা্ন বলেন, প্রথমবারে কিছু ভুল-ত্রুটি হয়। আশা করি এর পরেরবার ভুল-ত্রুটিগুলোকে কাটিয়ে উঠতে পারবো। আমি দেখেছি, কিভাবে মানুষ ময়লার উপরে নামাজ পড়েছে। বৃষ্টি বাদলের দিনে অসেকে ভিজে নামাজ পড়েছে। এটা দেখেই চেয়েছি যাতে মানুষ সুন্দরভাবে একটা বড় ঈদের জামাতে নামাজ আদায় করতে পারে। ঈদের জামাত খোলা মাঠে পড়তে হয়। সেখান থেকেই ঈদগাহের তৈরি।

শামীম ওসমান বলেন, এবার তো নারায়ণগঞ্জে সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত হলো। যদি আল্লাহ বাচিয়ে রাখে তাহলে আগামীবার বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তর ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে এই নারায়ণগঞ্জে। আগামীবার ওসমানি স্টেডিয়াম, এই স্টেডিয়াম, ঈদগাহ আর রাস্তা মিলে হবে সেই জামাত। আল্লাহ চাইলে হবে ইনশাল্লাহ।

প্রথমবারের মতো বৃহৎ এ জামাতে অংশ নেন নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. রেজাউল বারী, নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি খালেদা হায়দার খান কাজল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, আদালতের নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলীসহ জেলার বিভিন্ন থানা এলাকার সর্ব শ্রেণীর মুসুল্লিরা।