নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার বক্তাবলী পরগনার ১৯৭১ সালের ২৯ নভেম্বর পাকহানাদার বাহিনীর হাতে নিহত ১৩৯ জন শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন সহ নানা ধরনের কর্মসূচির পালন করা হয়েছে।

আর শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় কবরজিয়ারতসহ দোয়া কামনা করা হয়। গণহত্যা দিবস পালনে শহীদদের পরিবারসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) সকাল হতে দুপুর পর্যন্ত বক্তাবলীর কানাইনগরস্থ’ স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন ও লক্ষ্মীনগর গণকবরে কবরজিয়ারত ও দোয়া প্রার্থনা করেন।

এদিকে ২৯ নভেম্বর বক্তাবলী গণহত্যা দিবসে বক্তাবলী পরগনায় শোকের দিন হিসেবে পালন করা হয়। বক্তাবলী পরগনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। বেশির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কালো পতাকা উত্তোলন করে এবং কালো ব্যাচ পরিধানের মাধ্যমে শোক দিবস হিসাবে পালন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকালেই বক্তাবলী গণহত্যা দিবস পালনে শহীদদের পরিবারের পক্ষ থেকে লক্ষ্মীনগর পূর্বপাড়া গণকবরে কবর জিয়ারত করা হয়। কানাইনগর ছোবহানিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে অবস্থিত শহীদদের স্মৃতিতে স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা ও শোক র‌্যালী করেন করেন কানাইনগর ছোবহানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সামাজিক সংগঠন এবি ফ্রেন্ডস এসোশিয়েশনের সাধারন সম্পাদক মাল আশরাফউদ্দিন নান্নু, সিনিয়র সহসভাপতি মীর মঈন আশরাফ জাবেদ, সহসভাপতি রাশেদুল হক রাসেল, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মো: শাহাদাত হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম সুমনসহ প্রমুখ।

এছাড়া বক্তাবলী পরগনার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দরা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সামাজিক সংগঠন ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

দুপুরে আমরা মুক্তিযুদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড জেলার পক্ষ থেকে আলামিন প্রধান নুর আলম আকন ও রাসেলের নেতৃত্বে স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। নারায়ণগঞ্জ ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির পক্ষ হতে শওাগর এর নেতৃত্বে স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

আলোকিত বক্তাবলীর সভাপতি নাজির হোসেন, সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক বাদল হোসেনের নেতৃত্বে শোক র‌্যালী নিয়ে স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত আলী,বক্তাবলী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক বাবুল মিয়া, আলোকিত বক্তাবলীর সাবেক আহবায়ক মাশফিকুর রহমান শিশির, জেলা তাঁতীলীগ নেতা মনির হোসেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত আলী বলেন, ২৯ নভেম্বর বক্তাবলী পরগনার যেসকল ব্যক্তি শহীদ হয়েছে তাদের রুহের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং আগামীতে ব্যাপক পরিসরে বক্তাবলী দিবস পালন করা হবে। এতে করে এলাকার সর্বস্তরের জনগণের সহযোগিতা কামনা করেন।