ফতুল্লার কাশিপুর ভোলাইল এলাকায় নির্মম ভাবে নিহত বক্তাবলীর কানাইনগর গ্রামের বাসিন্দা ঝুট ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান চৌধুরী সেলিমের জানাযা নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। (১১ এপ্রিল ২০১৯) বৃহস্পতিবার বাদ আছর কানাই নগর স্কুল মাঠে জানাযা নামাজ শেষে চৌধুরী বাড়ির পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হয়।

খুনী মোহাম্মদ আলী বাহিনীর হাতে নির্মম ভাবে নিহত কামরুজ্জামান চোধুরী সেলিমের জানাযায় উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রনালয়ের চীফ ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুল্লাহ চোধুরী,বাংলাদেশ নীট মালিক এসোসিয়েশনের সভাপতি আবু তাহের কালাম চৌধুরী,ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোঃ শহীদুল্লাহ, পঞ্চায়েত প্রধান শহীদুল্লাহ ফকির, নাসিরউদ্দিন মাদবর,বক্তাবলী ইউপি মেম্বার রাসেল চৌধুরী সহ সর্বস্তরের ৩/৪ হাজার লোক উপস্থিত হন।

উল্লেখ্য গত ৩১ মার্চ ফতুল্লার শিবু মার্কেট লামাপাড়ার ভাড়া বাসা হতে ব্যবসার উদ্যেশ্যে বের হন কামরুজ্জামান চৌধুরী সেলিম। ৬ এপ্রিল ফতুল্লা মডেল থানায় জিডি করেন। ৮ মার্চ অপহরণ মামলা দায়ের করেন। ১০ এপ্রিল বিকালে ভোলাইলে খুনী মোহাম্মদ আলীর ঝুটের গোডাউন হতে নিখোঁজের ১০ দিন পর বস্তা লাশ উদ্ধার করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। প্রধান খুনী মোহাম্মদ আলী, ফয়সালসহ ৩ জনকে আটক করে পুলিশ।

শান্ত ও নিরীহ প্রকৃতির ঝুট ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান চৌধুরী সেলিমের লাশ বক্তাবলী পৌছলে শোকের ছায়া নেমে আসে। কানাইনগর গ্রামে পৌছলে স্বজনদের কান্নায় আকাশ ভারী হয়ে উঠে। শোকে মূহ্যমান হয়ে পড়ে মানুষ।দুর দুরান্ত হতে লোকজন ছুটেঁ আসে জানাযায়।