নিউজ প্রতিদিন: পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেছেন, জঙ্গি সন্দেহে ঢাকায় একজনকে আটকের পর তার দেয়া তথ্যে রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ফতুল্লার একটি বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এখানে তক্কারমাঠ এলাকায় একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এক দম্পতিকে আটক করা হয়। ফতুল্লায় আটক তিনজনই নব্য জেএমবির সদস্য। সোমবার দুপুরে ফতুল্লার তক্কারমাঠ এলাকার ওই বাড়ি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এসব বলেন।

মনিরুল ইসলাম আরও বলেন, বাড়িটিতে পাওয়া বিস্ফোরকের সঙ্গে সম্প্রতি রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে জঙ্গি আস্তানায় পাওয়া বিস্ফোরকের মিল রয়েছে।

মনিরুল ইসলাম আরও বলেন, ‘অন্যান্য জঙ্গি আস্তানায় যে ধরনের ল্যাব বা কারখানার সন্ধান মিলেছে সেগুলোর চেয়ে এটি ব্যতিক্রম। এখানে ডেটোনেটরসহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক পাওয়া গেছে। দুই ভাই এই আস্তানাটিতে বেশ কিছুদিন ধরে অবস্থান নিয়ে বিস্ফোরক তৈরি করছিল।’

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘রবিবার রাতে ঢাকা থেকে মিজানুর রহমান ওরফে রফিককে আটক করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার তক্কার মাঠ এলাকায় বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) জয়নাল আবেদিনের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে তার ভাই ফরিদ উদ্দিন রুমিকে আটক করা হয়। এছাড়া জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ফরিদের স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে আটক করা হয়।’ আটক ফরিদ ও রফিক নব্য জেএমবির সদস্য বলে জানান তিনি।

এদিকে, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় জঙ্গি আস্তানা দেখতে উৎসক জনতার ভিড় বাড়তে থাকে। ওই বাড়ির চারপাশ পুলিশ ঘিরে রাখলেও সড়ক ও আশপাশের বহুতল বাড়ির ছাদে ভিড় করেন জনতা। এর মধ্যে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ঢাকা থেকে বোম্ব ডিসপজাল ইউনিটের একটি দল। এর পর ওই বাড়িতে রোবট নিয়ে প্রবেশ করে।

রোববার দিবাগত রাত ৩টা থেকে ফতুল্লার তক্কারমাঠ এলাকায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা জয়নাল আবেদিনের বাড়িটি ঘিরে চালানো অভিযানে এ পর্যন্ত দম্পতিসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন- ব্যাংক কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনের ছেলে ফরিদ উদ্দিন রুমি (২৭), তার ছোট ভাই জামাল উদ্দিন রফিক (২৩) ও রুমির স্ত্রী জান্নাতুল ফুয়ারা অনু (২২)।

এদের মধ্যে জামাল উদ্দিন রফিককে আগেই ঢাকা থেকে আট করে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। তার দেয়া তথ্যেই পরে তাদের ফতুল্লার বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন বলেন, আমাদের জেলা পুলিশ কাউন্টার টেররিজম টিমকে সহযোগিতা করছে।