চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে এ ঘটনায় গ্রেপ্তার আনোয়ার ও ওয়াসিম। এই দুই জনকে গতকাল শনিবার রাতে আটক করা হয়েছে।আজ রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়।

পরে দুপুর তিনটার দিকে সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার তাঁর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আনোয়ার ও ওয়ামিস সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করেন। তিনি বলেন, ‘কিলিং মিশনের এদের সম্পৃক্তা পাওয়া গেছে।মিতু হত্যায় এরা দুই জনই সরাসরি অংশগ্রহণ করেন। এদের দুজনই চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার বাসিন্দা। এরমধ্যে ওয়াসিম নিজে মিতুকে গুলি করেন। আর আনোয়ার ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন ব্যাকআপের জন্য।’ আদালতে তারা দুজনই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

তবে কার নির্দেশে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে সে ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলতে অস্বীকার করে সিএমপি কমিশনার বলেছেন, তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ ব্যাপারে কিছু বলা যাচ্ছে না।

তদন্ত শেষ হওয়ার পরই এ ব্যাপারে বিস্তারিত বলতে পারবো। তিনি বলেন, ‘এটা যে টার্গেট কিলিং সে ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই।তবে এর নেপথ্যে কারা সেটা বলার সময় এখনো আসেনি।হতে পারে জঙ্গিদের কাজ।তবে এখনই উপসংহারে যেতে চাই না।আমরা সব দিক বিবেচনা করেই তদন্ত করছি।’

মিতু হত্যার ঘটনায় এসপি বাবুল আক্তারকে দীর্ঘ ১৫ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পরই আনোয়ার ও ওয়াসিম আদালতে স্বীকরোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলো।