অবশেষে ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্ব আসছে। দীর্ঘদিনের কমিটি বাতিল করে দিয়ে নতুন করে ছাত্রলীগ সাজানোর উদ্যোগ গ্রহন করেছে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ ও জেলা ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা। এবারের কমিটিতে ছাত্র, সক্রিয় নেতাকর্মীদেও স্থান দেয়া হবে। এছাড়া যারা দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের হয়ে নানা কর্মকান্ডে অংশ গ্রহন করে ছাত্রলীগের রাজনীতিকে চাঙ্গা রাখতে যারা অগ্রনী ভূমিকা পালন করেছে তাদের নিয়েই হচ্ছে এবারের ছাত্রলীগের কমিটি। অনুসন্ধ্যানে জানাগেছে, ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসছে ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান জুয়েল। তিনি দীর্ঘদিন ধওে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত রয়েছে। এছাড়া বিগত দিনে বিশ দলীয় জোট সরকারের সরকার বিরোধী আন্দোলনে নেতাকর্মীদের নিয়ে রাজপথে সক্রিয় ছিল। এছাড়া ছাত্রলীগের কমিটিতে অছাত্র-বিবাহিত ও বিতর্কীতদের ঠাঁই হবে না বলে ছাত্রলীগের ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানাগেছে। উল্লেখ্য, জেলা আওয়ামী লীগের আংশিক কমিটি গঠনের পর থেকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনগুলো নতুন করে পূর্নগঠনের কাজ শুরু হয়। তারই ধারাবাকিতায় দীর্ঘদিন পর ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের কমিটি ঠন হতে যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্রে জানাগেছে, ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগ নতুন করে গঠন করা হবে। যে কোন সময় সক্রিয় নেতাদের সমন্বয়ে এই কমিটি ঘোষণা দেয়া হবে। এতোদিন যারা ছাত্রলীগের সক্রিয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত ছিল সে সমস্ত নেতাকর্মীদের নিয়েই নতুন কমিটি গঠন করা হবে। এছাড়া ছাত্রলীগের রাজনীতি করতে আগ্রহী বিতর্কীত, বিবাহিত ও অয়াত্রদের ঠাঁই হবে না বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে। ছাত্রলীগের একাধিক সূত্রে জানাগেছে, ফতুল্লা থানা যুবলীগের বর্তমান সভাপতি আবু মো. শরীফুল হক ও সাধারন সম্পাদক যুবলীগ ও স্বেচ্ছা সেবক লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হতে যাচ্ছে। যে কারণে ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্ব গড়ে তোলার লক্ষ্যেই যে কোন সময় ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হবে। এবারের কমিটিতে সম্ভব্য সভাপতি হিসেবে মেহেদী হাসান জুয়েলের নাম শোনা যাচ্ছে। এছাড়া রাফেল প্রধান, অক্টে অফিস এলাকার ফয়সাল, কোতালের বাগের বাছেন প্রধান, ভূইঁঘরে প্রান্ত, পোষ্ট অফিস রোডের সৈয়দ মো. শাওন, ফতুল্লার মীর শুভ, হৃদয়, এনায়েত নগরের রোমান, মাসদাইরের শান্ত, কুতুবপুরের শুভ, কাশিপুরের হৃদয়কে ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ন পদে রাখা হচ্ছে বলে ছাত্রলীগের একাধিক সূত্রে জানাগেছে। এসব নেতারা দীর্ঘদিন ধরেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। এদের মধ্যে মেহেদী হাসান জুয়েল,  মীর শুভ ও সৈয়দ মো. শাওন দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নানা কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। বিগত বিশ দলীয় জোটের সরকার বিরোধী আন্দোলনেও তারা মাঠে ছিল।