বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, এটিএন নিউজের দুই সংবাদকর্মীর ওপর হামলা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে পুলিশ সদস্যরা উসকানি পাবেন।

শনিবার রাজধানীর শাহবাগে এক প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন বুলবুল।

ঢাকায় তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির হরতাল চলাকালে সাংবাদিক নির্যাতনের ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সাংবাদিক নির্যাতন পুলিশে করে না। মাঝেমধ্যে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায়, এটা স্বাভাবিক। আপনারা দুজন বন্ধু যদি একসঙ্গে চলেন ধাক্কাধাক্কি তো লেগেই যায়। এই ধরনের একটা কিছু হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে মৌলভীবাজার জেলার শমসেরনগরে শাহ তোরণের ফলক উন্মোচন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শনিবার সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় বেলা ১১টার দিকে প্রতিবাদ সমাবেশ শুরু হয়। শেষ হয় বেলা ১১টা ২০ মিনিটে।

সমাবেশে মুখে কালো কাপড় বেঁধে বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত হন। ওই সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন ধরনের প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার নিয়ে দাঁড়াতে দেখা যায়।

সমাবেশ শেষে মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, বহুবার গণমাধ্যমকর্মীরা তাঁদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন। কিন্তু বিগত সময়ে কোনো সুষ্ঠু বিচার সম্পন্ন হয়নি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের বিষয়ে বুলবুল বলেন, ওই ঘটনার পর মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে পুলিশ সদস্যরা উসকানি পেয়ে যাবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে।

সমাবেশে উপস্থিত এটিএন নিউজের বার্তাপ্রধান মুন্নী সাহা বলেন, নিরস্ত্র সাংবাদিকদের পুলিশ যেভাবে পিটিয়েছে, সেটা মানবতাবিরোধী। এই ঘটনার জন্য যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে, আশা করা যায়, সে তদন্ত কমিটি সুষ্ঠুভাবে প্রতিবেদন দেবে। মুন্নী সাহা আরো বলেন, আজ এই সমাবেশস্থলে যাঁরা উপস্থিত হয়েছেন, তাঁরা কোনো সাংবাদিক সংগঠনের ব্যানারে উপস্থিত হননি। প্রত্যেকে নিজ নিজ উদ্যোগ এই সমাবেশে এসেছেন।

বৃহস্পতিবার বাগেরহাটের রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধের দাবিতে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ডাকা আধা বেলা হরতাল পালন করে। হরতাল চলাকালে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজের নিজস্ব প্রতিবেদক এহসান বিন দিদার ও ক্যামেরাম্যান আবদুল আলীম পুলিশি নির্যাতনের শিকার হন। এ ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি শাহবাগ থানার এক সহকারী উপপরিদর্শককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

শুক্রবার এ ঘটনায় একটি অভিযোগও নিয়েছে পুলিশ। পাশাপাশি হামলার ঘটনায় রাজশাহীতে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ দুঃখ প্রকাশও করেন। এর মধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ নিয়ে মন্তব্য করেন।