নারায়নগঞ্জের ফতুল্লায় চিহ্নিত সন্ত্রাসী কিলার মোক্তার ও তার সহযোগি মানিক ডিবি পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়েছে।

২২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় পাগলার দেলপাড়া ক্যানেলপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতদের লাশ নারাযনগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, একটি রিভলবারসহ ২টি ধারালো অস্ত্র ৮ রাউন্ড গুলি এবং ২টি দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করে।

নিহত কিলার মোক্তার শাহিবাজার নিশ্চিন্তপুর এলাকার মনির মিস্ত্রীর ছেলে এবং তার সহযোগি মানিক নয়ামাটি এলাকার মৃত আব্বাস মিয়ার ছেলে।

নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ সার্কেল শরফুদ্দিন জানান, নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশের তালিকাভুক্ত ৪নং সন্ত্রাসী কিলার মোক্তার ও তার সহযোগিদের গ্রেফতারের জন্যে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে। ২২ ফেব্রুয়ারী বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় পাগলা দেলপাড়া ক্যানেলপাড় এলাকায় পুলিশকে লক্ষ্য করে কিলার মোক্তার ও তার সহযোগিরা গুলি বর্ষন করলে পুলিম পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় কিলার মোক্তার ও তার সহযোগি ঘটনাস্থলেই মারা যায় এবং সন্ত্রাসীদের গুলিতে জেলা গোযেন্দা পুলিশের এএসআই আবদুল আজিজ আহত হয়।

উল্লেখ্য, কিলার মোক্তার পাগলা ,সাইনবোর্ডসহ আশপাশ এলাকায় সন্ত্রাসের রামরাজত্ব কায়েম করে আসছিল। ঢাকা-নারায়নগঞ্জ লিংক রোডে বাস থামিয়ে গুলি করে স্বর্ন ব্যবসায়ী নুরুল ইসলামকে হত্যার পর স্বর্ণ লুটের মামলার অন্যতম আসামী কিলার মোক্তারকে গ্রেফতারে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে আসছিল।