নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নারায়ণগঞ্জে প্রবেশের আগে শ্রমিকলীগ নেতা কাউছার আহম্মেদ পলাশের বাসায় যাওয়া নিয়ে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে শুরু হয়েছে নতুন আলোচনা।  পলাশের বাড়িতে দলের সাধারন সম্পাদকের হঠাৎ আগমন ভিন্ন চোখে দেখছে রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল। এছাড়া পলিাশ শিবিরে এ নিয়ে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে। শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে নানা কৌতুহল দেখা দিয়েছে। সাধারন মানুষের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ওবায়দুল কাদের পলাশকে কী বার্তা দিয়ে গেলেন?

রোববার সকালে তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর পাইলিং কাজের উদ্বোধন ও ঢাকা- মুন্সিগঞ্জ সড়কের কাশিপুর ও গোগনগরের দুটি ব্রিজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যাত্রাপথে ফতুল্লার আলীগঞ্জস্থ পলাশের বাড়িতে হাজির হন সেতুমন্ত্রী।

কোনো সিডিউল ছাড়াই হঠাৎ করে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শ্রমিক নেতা কাউছার আহম্মেদ পলাশের বাড়ি হাজির হওয়ায় স্থানীয় এমপিসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা অবাক হয়ে যান।

এ সময় সেতুমন্ত্রীর সঙ্গে পলাশের বাড়িতে ছুটে যান নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান। নিজের বাড়িতে সেতুমন্ত্রীকে পেয়ে পলাশ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পোস্তখোলা সড়কের বেহাল দশার কথা তুলে ধরেন এবং রাস্তাটি সংস্কারের আহ্বান জানান।

পলাশের কথার পরপরই তাৎক্ষণিকভাবে সড়কের দায়িত্বরত প্রকৌশলীকে দ্রুত ওই রাস্তা মেরামতের জন্য নির্দেশ দেন সেতুমন্ত্রী। এ সময় সেতুমন্ত্রীকে পরিত্যক্ত নারায়ণগঞ্জ-আদমজী রেললাইন দিয়ে রাস্তা করার জন্য আহ্বানও জানান পলাশ।

পলাশের ঘনিষ্ঠ শ্রমিক নেতা শাহাদাত হোসেন সেন্টু জানান, সেতুমন্ত্রী কাদের সাহেব শীতলক্ষ্যা সেতুর উদ্বোধন করতে পোস্তখোলা সড়ক দিয়ে যাওয়ার পথে পলাশ ভাইকে দেখতে না পেয়ে দ্রুত ছুটে যায় পলাশ ভাইয়ের আলীগঞ্জের বাড়িতে। কাউকে কিছু না বলে সেতুমন্ত্রী পলাশ ভাইয়ের বাড়িতে যাওয়ায় পলাশ ভাইও অবাক হন। পলাশ ভাই পারিবারিকভাবে একটি অনুষ্ঠানে বাসায় থাকায় সকালে তিনি বাসা থেকে বের হননি। ঠিক ওই সময় পলাশ ভাইয়ের বাড়িতে গিয়ে হাজির হন সেতুমন্ত্রী।