নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমানের পূর্ব  ঘোষিত আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি বিশাল সমাবেশ স্থগিত করেছেন  তিনি কৌশলগত কারণে এ সমাবেশ স্থগিত করেছেন।

তবে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারির পর সমাবেশের তারিখ নির্ধারণ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের ভোট চলাকালীন সময়ে গণমাধ্যমকে ডেকে পূর্বের ঘোষিত সমাবেশ স্থগিতের কথা জানান শামীম ওসমান।

এর আগে গত ২৭ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের ওসমানী স্টেডিয়ামে মতবিনিময় সভা করে ৩ ফেব্রুয়ারি শহরে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছিলেন শামীম ওসমান।

তিনি বলেছিলেন, এ সমাবেশ হবে স্মরণকালের সব থেকে বড় এবং প্রমাণ করা হবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও যাতে বুঝতে পারেন নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী। এ সমাবেশের মাধ্যমে বিএনপি-জামায়াতকে বুঝিয়ে দেয়া হবে নারায়ণগঞ্জে কোনো ধরনের অরাজকতা সৃষ্টি করার চেষ্টা করা হলে দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে।

সমাবেশ স্থগিতের বিষয়ে শামীম ওসমান আদালত পাড়ায় বলেন, আগামী ৩ তারিখে স্মরণকালের বৃহৎ সমাবেশ করবো বলেছিলাম। যেহেতু ৮ তারিখে একটি রায় হবে। এছাড়া ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির পর যারা জ্বালাও পোড়াও করেছিল তাদের আস্ফালন আবারও দেখতে পাচ্ছি এবং এ সুযোগে স্বাধীনতাবিরোধী চক্র জামায়াত শিবিরের ওপরে ভর করে দেশে যে অরাজকতা চালানোর চেষ্টা করছে আমি চেয়েছিলাম নারায়ণগঞ্জের মানুষকে আগ থেকে সচেতন করতে। কিন্তু জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে এখনও বিষয়টি ফাইনাল করতে পারিনি। এছাড়া কৌশলগত কারণে ৮ তারিখে রায়ের পর আমরা সুবিধা মতো নারায়ণগঞ্জে এ জনসভা করবো। কারণ আমরা রায়ের পক্ষে শ্রদ্ধাশীল। তাই আদালতের রায় কি হয় তার অপেক্ষায় থাকবে নারায়ণগঞ্জবাসী।

তিনি আরও বলেন, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি আদালতের রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি-জামায়াত নারায়ণগঞ্জের মাটিতে কোনো ধরনের অপরাজকতা সৃষ্টি করতে পারবে না। নারায়ণগঞ্জবাসী শান্তি চায়, ভালোভাবে বাঁচতে চায়। তাই ৮ তারিখে আদালতের রায়ের পর পরিস্থিতি বুঝে সমাবেশের আয়োজন করা হবে। আগেও বলেছিল, এখনও বলছি নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী লীগ ঐক্য ছিল এবং আগামীতেও থাকবে।