গত ২০ মার্চ অনুষ্ঠিত বক্তাবলি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে অনুষ্ঠিত মত ‍বিনিময় সভা নিয়ে নেতাকর্মীদের যে উচ্ছাস ছিলো কর্মী সভার পর অনেকটাই চুপসে গেছে। কর্মী সভাকে কেন্দ্র করে নেতাকর্মীদের মাঝে যে চাঙ্গাভাব ছিল, সমাবেশের পর তা হতাশায় পরিনত হয়েছে।নেতা কর্মীরা মনে করেছিলেন দীর্ঘ দিন পর এমপি কাছে পেয়ে তাদের অবমূল্যায়ন,ক্ষোভ, হতাশার কথা তুলে ধরবেন তা পুরোটাই আশায় গুড়েবালিতে পরিনত হয়েছে। যে কর্মীদের নিয়ে ডাকঢোল পিটিয়ে এত বড় আয়োজন সে কর্মীদের একজনের ও সুযোগ হয়নি এমপির সামনে কথা বলার।খোদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কামরুল ইসলামেরই জায়গা হয়নি মঞ্চে বসার।তাকে দেখা গেছে সাধারন জনগনের সাথে দাড়িয়ে শামীম ওসমানের বক্তব্য শুনতে।এ নিয়ে নেতা কর্মী সমর্থকদের কানা ঘুসা করতে দেখা যায়।ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক আরিফুল ইসলাম বলেন কর্মীরা শামীম ওসমানের বক্তব্য শুনতে যায়নি, শোনাতে গিয়েছিলেন।