ফতুল্লা সংবাদদাতা: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ভূঁইগড় এলাকায় পাচারের উদ্দেশ্যে আনা কোটি টাকা মূল্যের বিরল প্রজাতির দুইটি চিতা বাঘ (লেপার্ড) উদ্ধার করেছে র‌্যাব-১১ সদস্যরা। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে র‌্যাব বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনে আন্তর্জাতিক পাচারকারী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত র‌্যাব সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার ভূঁইগড় রঘুনাথপুর এলাকায় একটি বাড়িতে এ অভিযান চালায়।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, রঘুনাথপুর এলাকার বাসিন্দা সৌদি আরব প্রবাসী তকদির হোসেনের ছেলে শওকত ইমরান মিঠু ও একই এলাকার খলিল উদ্দিনের ছেলে আরিফুল ইসলাম।

বিকেলে র‌্যাব-১১ এর ভারপ্রাপ্ত ব্যাটালিয়ান অধিনায়ক (সিও) মেজর আশিক বিল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শওকত ইমরান মিঠুর বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এসময় একটি কক্ষের তালা ভেঙ্গে খাঁচার ভেতরে রাখা অবস্থায় বাঘ দুইটি উদ্ধার করা হয়। পরে পাচারের সাথে জড়িত অভিযোগে শওকত ইমরান মিঠু ও তার সহযোগী একই এলাকার আরিফুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে এবং উদ্ধারকৃত চিতা বাঘ দুইটি আদালতের মাধ্যমে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে হস্তান্তর করা হবে। বাঘ দুইটির আন্তর্জাতিক বাজাওে কমপক্ষে কোটি টাকা মূল্য হবে বলে র‌্যাব ধারণা করছে

তিনি আরো জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা র‌্যাবকে জানিয়েছে, গত পাঁচ ছয়দিন আগে তারা এই চিতা বাঘ দুইটি আফ্রিকা থেকে কার্গো বিমানে করে নিজেদের এই বাড়িতে এনে লুকিয়ে রেখেছিল। সুবিধামতো সময়ে তারা এগুলো পাশ্ববর্তী কোন দেশে পাচারের পরিকল্পনা ছিল। তারা দীর্ঘদিন যাবত আন্তর্জাতিক পাচারকারী চক্রের বাংলাদেশের এজেন্ট হিসেবে কাজ করে আসছে এবং এই বাড়িকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করতো।

বিভিন্ন সময়ে বিরল প্রজাতির মূল্যবান প্রাণী এই বাড়িতে এনে লুকিয়ে রাখতো এবং সুবিধামতো সময়ে বিদেশে পাচার করতো। সম্প্রতি তারা বিরল প্রজাতির দুইটি সাদা রঙের সিংহ বিদেশে পাচার করেছে। এই চক্রের সাথে জড়িত অন্যান্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও র‌্যাব জানিয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-১১ এর সিনিয়র সহকারি পরিচালক (এএসপি) আলেপ উদ্দিন ও সহকারি পরিচালক (এএসপি) নাজমুল আলম রানা।