নিউজ প্রতিদিন :  প্রিয়জন, বন্ধুবান্ধব ও শুভাকাঙ্খীদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন বক্তাবলী পরগণার কৃতি সন্তান ডা. একে শফিউদ্দিন আহমেদ মিন্টু। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজের জন্মদিনের অনুষ্ঠান করতে তিনি আগ্রহী নন। তারপরও তার শুভাকাঙ্খীরা তাকে বিভিন্ন ভাবে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বক্তাবলী পরগণার সামাজিক সংগঠন “ধলেশ্বরীর তীরে’র” পক্ষ থেকে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সংগঠনটির যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ ইকরামুজ্জামান তুহিন এবং সদস্য সচিব আব্দুল্লাহ আল ইমরান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন আলোকিত বক্তাবলীর সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক নুরুজ্জামান জিকু। ডা. একে শফিউদ্দিন আহমেদ মিন্টুর আজ ৪৪তম জন্মদিন। ৪৪ বছর আগে এই দিনে তিনি নারায়ণগঞ্জ সদর থানার আলীরটেক ইউনিয়নের ডিক্রির চর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে মোঃ আব্দুল খালেক মাষ্টারের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পরিবারের ৬ষ্ঠতম সন্তান। শৈশবে তিনি ডিক্রীরচর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়া শুরু করেন । সেখান থেকে কানাইনগর ছোবহানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে অধ্যায়ন করেন এবং এসএসসিতে তিনি মেধার সাথে ভালো ফলাফল করে ঢাকার নটরডেম কলেজে পাড়াশোনা করেন। নটরডেম কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে পাঠ শেষ করে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পান। কিন্তু তার এবং পরিবারের স্বপ্ন ছিল বড় হয়ে তিনি চিকিৎসা পেশায় নিয়োজিত হয়ে মানুষের সেবা করবেন । তাই তিনি বুয়েটে ইঞ্জিনিয়ারিং না পড়ে সিলেট মেডিক্যালে ভর্তি হন। সেখান থেকে তিনি কৃতিত্বের সাথে পাশ করে দেশ বিদেশ থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে চিকিৎসা পেশায় নিয়োজিত হন। বর্তমানে তিনি নারায়ণগঞ্জ ডায়াবেটিস হাসপাতালের কনসালটেন্ট ও মেডিনোভা ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর কনসালটেন্ট হিসেবে বেশ সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করছেন।

ডা. মিন্টু ২০১২ সালে বক্তাবলী পরগণার মানুষের সেবার কথা ভেবে ডিক্রিরচর নিজ গ্রামে তিনি খালেক মাষ্টার ডায়াবেটিস হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ ডায়াবেটলজিষ্ট সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি তিনি বক্তবলী পরগণার আলোচিত সামাজিক সংগঠন ধলেশ্বরীর তীরে’র আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি কুড়েরপাড় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্বে আছেন। এছাড়া তিনি নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের স্থায়ী সদস্য এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের দায়িত্ব পালন করছেন। এলাকায় তিনি একজন সৎ, নিষ্ঠাবান, দানবীর ও নিঃশ্বার্থ সমাজ সেবক হিসেবে সাবার কাছে প্রিয়।

জন্মদিন উপলক্ষ্যে ডা. মিন্টু বলেন, জন্মদিনে প্রিয়জনদের ভালোবাসায় আমি অভিভূত। এই ভালোবাসা আমাকে তারা কৃতজ্ঞতায় আবদ্ধ করল এবং ঋনি করল। সকলের ভালোবাসায় সামনের দিনগুলোকে ভালো কাজ করার জন্য উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা জোগাল। সকলের প্রতি রইল আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন, ভালোবাসা ও ধন্যবাদ।