নিউজ প্রতিদিন ডটনেট : সদর উপজেলার বক্তাবলীতে বেড়েছে কিশোর গ্যাং এর উৎপাত। কয়েকটি গ্রামের অলিতেগলিতে এখন তাদের তাণ্ডবে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটছে। এসব কিশোর গ্যাং এর নেতাদের হাতে উঠে এসেছে আধুনিক সুইস গিয়ারও। গত কয়েকদিন ধরে দফায় দফায় তাদের হামলার শিকার হয়েছে লক্ষ্মীনগর গ্রামের নিরীহ কয়েকজন কলেজ ছাত্র।

আহতদের অভিযোগ, এসব কিশোর গ্যাং এর সদস্যরা এতোই বেপরোয়া তাদের কোন কাজের প্রতিবাদ করলেই সংঘবদ্ধ হয়ে হামলা চালায়। তাদের হাতে আধুনিক চাকু-ছোড়াও রয়েছে। কেউ কেউ এতোই বেপরোয়া এলাকার মুরুব্বী, সমাজপতি কারোর কথাই শুনে না। মুখের উপর চট করে অশ্লীল কথাবার্তা বলে বসে। অথচ বক্তাবলী গ্রামে এখনও পঞ্চায়েত প্রথা চলে আসছে।

কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তির অভিযোগ, এলাকার কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তি নিজেদের স্বার্থে এসব কিশোর গ্যাং পালতে শুরু করেছে। না হলে কচি কচি ছেলেপেলেরা এত সাহস পাবার কথা নয়। এতে শান্ত গ্রামগুলো অশান্ত হয়ে উঠতে পারে।

স্থানীয়রা জানায়, বক্তাবলীর কানাইনগর গ্রামের ইয়াসিন ও সিয়ামের নেতৃত্বে একদল কিশোর গ্যাং এর উৎপাত শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিনে এ গ্যাংটি বেশ কয়েকটি অপকর্ম করেছে। বুধবার সন্ধ্যায় তাদের হামলার শিকার হয়েছে লক্ষ্মীনগর গ্রামের কয়েকজন কলেজ ছাত্র। পরে স্থানীয়রা কয়েকজনকে আটক করে বেদম প্রহার করে।

তবে এ বিষয়ে বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল মতিন খাঁন জানান, এটা ঠিক কিশোর গ্যাং নয়। সমবয়সীদের সাথে কয়েকবার ঝগড়া হয়েছে। শুক্রবার এ নিয়ে শালিসও হবে।

এ বিষয়ে বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম শওকত আলী বলেন, বক্তাবলী এলাকা খুব শান্তিপ্রিয় এলাকা। এখানে এসব সহ্য করা হবে না। বক্তাবলীতে যারা কিশোর গ্যাং হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেতে চায়, তাদের অভিভাবকদের অনুরোধ করব শুরু থেকে তাদের ওই পথ থেকে সরিয়ে আনতে চেষ্টা করে। সামাজিকভাবে সবাইকে অনুরোধ করব, যারা কিশোর গ্যাং এর নামের সামাজিক শৃঙ্খলা নষ্ট করতে চায় তাদের সামাজিকভাবে প্রতিহত করতে। এ বিষয়টি নিয়ে আমি প্রশাসনের সাথে কথা বলে তাদের অবহিত করবো। যাতে শুরুতেই এসব নিয়ন্ত্রণ করা যায়।