পনের বছর পর নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন হচ্ছে

101

আবদুর রহিম : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলাবাসীর দীর্ঘ অপেক্ষার দিন শেষ হতে চলেছে। পনের বছর পর নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী প্রথম ধাপে নারায়ণগঞ্জের সদর উপজেলার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৮মে। এই নির্বাচনের মধ্যদিয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলাবাসী নতুন অভিভাবক নির্বাচিত করবেন। এবারের নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিবে না তা-প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেছে।

তবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি থেকে প্রার্থী দেওয়ার কথা রয়েছে।  তবে আওয়ামী লীগ থেকে সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। ইতোমধ্যে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম, মহানগর যুবলীগের সভাপতি সাজনু, পরিবহণ নেতা ইব্রাহীম চেঙ্গিস এবং সদর উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে পারেন বলে সর্বোত্র গুঞ্জন চলছে।

এরমধ্যে শাহ নিজাম, নাজিম উদ্দিন এবং ইব্রাহীম চেঙ্গিস প্রার্থী হবেন বলে নিজেদের ব্যাপারে নানা ভাবে জানান দিয়েছেন। তাঁদের কর্মী সমর্থকেরাও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেছেন। তবে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম এবং মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনুর প্রার্থীতা নিয়ে সর্বোত্র আলোচনা শুরু হয়েছে। তাঁদের পক্ষে বিপক্ষে চলছে তুমুল আলোচনা।

তবে দীর্ঘদিন পর নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের মধ্যেও আগ্রহের কমতি নেই। ১৫ বছর ধরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাসের কাছ থেকে সেবা বঞ্চিত ভোটাররা জনবান্ধন এবং গ্রহনযোগ্য প্রার্থীকে বেছে নিতে চাচ্ছেন। জনপ্রিয় এবং যোগ্য প্রার্থী হিসেবে শাহ নিজাম এবং শাহাদাত হোসেন সাজনু অন্যতম।

অপরদিকে, পরিবহন নেতা ইব্রাহীম চেঙ্গিস এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। ইতোমধ্যে তিনি তার আগ্রহের কথা গণমাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন।  বসে নেই সদর উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইসচেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন। তিনি একাধিক অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিষয়টি প্রকাশ করে ভোটারদের কাছে দোয়া চেয়েছেন। দীর্ঘ ১৫ বছর নাজিম উদ্দিন সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে কুতুবপুরের বাইরের মানুষ তাঁকে কাছে পায়নি এমন অভিযোগ সদর উপজেলাবাসীর।

মূলত তিনি কুতুবপুরে কয়েকটি ওয়ার্ড ছাড়া সদর উপজেলাবাসীরমকাছ থেকে বিচ্ছিন্ন থেকেছেন। ফলে তাঁকে ব্যর্থ হিসেবে আখ্যায়ি করে তার প্রত্যাশা নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন সদর উপজেলার ভোটাররা। ভোটারদের মতে, নাজিম উদ্দিন ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে পুরো সদর উপজেলাবাসীর কাছ বিচ্ছিন্ন ছিলেন, এখন কী করে চেয়ারম্যান হতে চাচ্ছেন?

অপরদিকে, ইব্রাহিম চেঙ্গিস প্রার্থী হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। ভোটারদের মতে, তিনিও জনবিচ্ছিন্ন নেতা হিসেবে পরিচিত।

সদর উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নিয়েও চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।  এবারের নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী এবং ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের ১নং সদস্য আবু মোঃ শরীফুল হকের নাম আলোচনায় উঠে এসেছে। ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে আওয়ামী লীগের এ দুই নেতা সদর উপজেলাবাসীর কাছে বেশ পরিচিত। তবে চেয়ারম্যান এবং ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দল যাকে মনোনীত করবেন আওয়ামীলীগের কর্মী সমর্থক এব সদর উপজেলার ভোটাররা তাঁদের ভোট প্রয়োগের মধ্যদিয়ে নির্বাচিত করবেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচনন কমিশন সদর ও বন্দরসহ সারা দেশের মোট ১৫২ উপজেলা নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করেছেন। প্রথম ধাপে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৪ মে।

প্রসঙ্গত, সর্বশেষ ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সে সময় বিএনপি নেতা আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপর ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন গঠিত হলে সদর উপজেলার কিছু অংশ সিটি কর্পোরেশনে চলে যায়। উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ (২০০৯ সনের ৩০ জুন সংশোধিত) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার সদর উপজেলা পুর্নগঠন করে। ২০১৪ সালের ৪ মার্চ এ সংক্রান্ত একটি গেজেট প্রকাশ করা হয়।