বিচারহীনতা কারনে অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে দেশ

70

অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্র বিজ্ঞানী ও সাবেক ভিসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় : মানুষের বেঁচে থাকার জন্য খাবার-দাবার গুরুত্বপূর্ণ। খুব প্রয়োজনীয়। তারচেয়েও বেশি প্রয়োজন কি নিরাপত্তা নয়? মানুষ নিরাপদে পথ চলবেন, বাড়িতে নিশ্চিতে ঘুমাবেন। নিরাপত্তার এই জায়গাটিও বোধ হয় নিঃশেষ হয়েছে। যা পরিস্থিতি চারদিকে কে কোথা থেকে, কোন মুহূর্তে মারা যান, মেরে ফেলা হয় নিশ্চিত নয় কেউ। এটি তো অতীতে ছিল না দৈনিক আমাদের অর্থনীতিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেন বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমেদ।

তিনি বলেন, দেশের এই আতঙ্কজনক পরিস্থিতি কেন, তা বুঝতে কারও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। প্রতিদিনই পত্রিকায় হত্যা-খুনের খবর থাকে। এমন কোনোদিন নেই হত্যাকান্ড- হচ্ছে না। নারী-শিশু ধর্ষণ হচ্ছে না। নারী-শিশুরাও এখন নিরাপদ নয়। একটা অস্বাভাবিক পরিস্থিতি দেশে বিরাজ করছে।

অনিশ্চিত, অনিরাপদ, অস্বাভাবিক পরিস্থিতির দায় কার, দায়ী কে? জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতিই এই অস্বাভাবিকতা পরিস্থিতির মূল কারণ। বিচারহীনতা মারাত্মক একটা ব্যাধির মতো দাঁড়িয়েছে। কোনো একটা ঘটনা ঘটছে, তার তদন্ত, ওমুক-তমুক করতে গিয়ে বছরের পর বছর পার হচ্ছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে কিছুই হচ্ছে না।

যেকোনো অন্যায়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে পারলে আস্তে আস্তে ব্যাপারগুলো শেষ হয়ে যেত। দ্রব্যমূল্যে বৃদ্ধি পেলে হয়তো মানুষের কিছুটা কষ্ট হয়, কিন্তু জানটাই যদি চলে যায় তাহলে থাকেটা কী? মানুষের জীবনের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা নেই। চলাফেরা কঠিন হয়ে ওঠেছে। প্রতিমুহূর্ত একটা আশঙ্কার মধ্যে দিয়ে মানুষকে পথ চলতে হচ্ছে। ঘর থেকে বের হলে বাড়িতে কখন পৌঁছাব বা বাড়িতেই গিয়েই আবার কী পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় এমন আতঙ্কে আছে মানুষ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয়। আইনশৃঙ্খলায় নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ ক্রিমিনালদের দিকে দৃষ্টি নেই, তাদের দৃষ্টি বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের দিকে। অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, এমন সব লোক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, যাদের যোগ্যতা নেই, আছে সরকারের প্রতি আনুগত্যবোধ।

তিনি আরও বলেন, এখন কখন কাকে মেরে ফেলা হচ্ছে তা হিসাবে আনা যাচ্ছে না। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রেজাউল করিমকে মেরে ফেলা হলো। উনি ছিলেন একজন শান্তশিষ্ট মানুষ। ইংরেজির অধ্যাপক ছিলেন। বেহালা বাজাতেন। শুনেছি তিনি তার গ্রামের মসজিদটি টাইলস্ও করে দিয়েছিলেন। সবাইকে সহযোগিতা করতেন। এখানে তো অধর্মের কিছু নেই, কারও বিরুদ্ধেও কোনো কিছু নেই।

বাংলাদেশ কী মুক্তমতের মানুষদের জন্য বিপজ্জনক হয়ে ওঠছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের এখন ভয়ংকর অবস্থা। রুয়ান্ডা, বুরন্ডিয়ার মতো কতগুলো রাষ্ট্র রয়েছে আফ্রিকা অঞ্চলে, যার প্রায় প্রত্যেকটিকেই ব্যর্থ রাষ্ট্র বলা হয়। এখনকার মতোই তাদের শুরুটা হয়েছিল। দেশ বিভক্তি হয়ে যায়। আমাদের এখানেও বিভক্তি রয়েছে। সবার মধ্যে বিভাজনটা মারাত্মকভাবে হয়েছে। শিক্ষকেরা বিভক্ত, ছাত্ররা বিভক্ত, চিকিৎসকেরা বিভক্ত, সাংবাদিকেরা বিভক্ত, বিচারকেরাও বিভক্ত। এই বিভক্তি থেকেই দেশ আস্তে আস্তে একটা ভঙ্গুর অবস্থায় যাবে। ব্যর্থ রাষ্ট্রের দিকে অগ্রসর হবে।

দেশের সার্বিক পরিস্থিতির জন্য কী বিএনপি বা বিএনপির রাজনীতি কোনোভাবে দায়ী? এমন প্রশ্নের জবাবে এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, বিএনপি সেই রাজনীতিটা করতে পারছে না। কারণ বিএনপির কী পরিমাণ নেতা-কর্মী কারাগারে আছে তা তো আপনারা ভালো জানেন। কারাগার ভর্তি বিএনপি নেতা-কর্মীতে। এখানে বিএনপি-আওয়ামী লীগ ব্যাপার নয়, ব্যাপার হচ্ছেÑ ক্ষমতাসীনেরা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য দুষ্কর্মগুলো উৎসাহ দিচ্ছে অথবা তা সামাল দিতে পারছে না।

এমন অস্থির পরিস্থিতিতে আপনার পরামর্শ কী? জানতে চাইলে তিনি বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হতে হবে। অন্যায় যে-ই করবে, খুব দ্রুত অন্যায়কারীকে ধরতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।